বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

শোক হোক শক্তি, তাতেই বাঙ্গালীর মুক্তি: বাপপী সরকার, এমসি কলেজ ছাত্রলীগ

mujibবাঙ্গালীর জাতীয় তথা বিশ্বপরিসরে এক বিভীষিকাময় কাল অধ্যায় আগস্ট। আজ সেই শোকাহত বাঙ্গালীর বেদনাতীর্থ মাসের শুরু। এ মাসেরই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কাল রাতে ১৯৭১এর পরাজিত ঘাতকেরা হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নৃশংস ভাবে হত্যা করে। সে রাতে শুধু জাতির পিতাকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি ঘাতকেরা, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা সহ শেখ জামাল, শেখ কামাল ও শিশুপুত্র শেখ রাসেল, পুত্রবধুসহ পরিবারের ১৬জন সদস্যকে। ঈশ্বরের কৃপায় আমাদের বর্তমান, প্রাণপ্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বেঁচে যান। পৃথিবীর আর কোথাও এমন ঘৃন্য ও ন্যাক্কারজনক ঘটেছে কিনা তা আমার জানা নেই। যে পিতা স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন সেই স্বাধীন বাংলার স্থপতিকে স্বাধীনদেশেই ঘাতকেরা নির্মমভাবে হত্যা করে। শুধু বাংলা হারায় নি এ জাতীয় নেতাকে, পুরোবিশ্ব হারিয়েছে এক অনন্য উচ্চতার মহান বিশ্বনেতাকে। ১৯৭৫সালের ঘাতকরা ক্ষান্ত হলেও তাদের উত্তরসূরীরা ঠিকই চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে। বার বার আমার প্রাণপ্রিয় নেত্রীকে মারার চেষ্টা চালিয়েছে আর যাচ্ছেও। “রাখে হরি মারে কে” ২১আগস্ট তার জলন্ত উদাহরন সেদিন আমার নেত্রীকে মারার প্রয়াসে শক্তিশালী গ্রেনেড বিস্ফোরন করে সেদিন ঈশ্বরের কৃপা থাকায় বেচে যান তিনি। কিন্তু ওই হামলায় নিহত হন প্রয়াত জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমান সহ অসংখ্য নেতাকর্মীরা।এমনটি একবার হয়নি বহুবার হয়েছে। আজ যখন মাননীয় নেত্রীর নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে তখন বিএনপির হরতাল অবরোধের মত জ্বালাওপোড়াউয়ের নেতৃত্ব দিয়েছেন পেট্রোলনেত্রী খালেদা, নিজে করতে পারেনি তাই অন্যের কৃতিত্ব দেখে হংসেবিদ্বেষে করে বাংলাসহ বিশ্বে পেট্রোলনেত্রী নামে আখ্যায়িত হয়েছেন। নেত্রীর সুদক্ষ নেতৃত্বে সেই জালাও পোড়াউ যখন অবারকাম করে এসেছি তখন বাংলাদেশকে বিশ্বদরবারে মাথানত করতে জঙ্গী বাহিনী গড়ে তুলেছে জামাতবিএনপি। ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে বিদেশি নাগরিক সহ দেশীয় ইমাম,মন্দিরের সেবায়েত সহ দেশের সংখ্যালগুদের নৃশংসভাবে হত্যা চালিয়ে যাচ্ছে।কিন্তু ওই ঘাতকেরা জানে না নেত্রী সুদক্ষ নেতৃত্বে কিছুই বাধা হয়ে দ্বাড়াতে পারবে না,তাদের কোন চেষ্টাই সফল হবে না আর সফল হতে দিবেন না। যে জনকের ডাকে ১৯৭১সালে বাংলার স্বাধীনতাগামী মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে বিজয় চনিয়েএনেছিল, আজ দরকার পরলে সেই বঙ্গ পিতার কন্যার নেতৃত্বে বাংলার প্রতিটি মুজিব আদর্শের সৈনিকেরা ১৯৭১সালের স্বাধীনতা অর্জনের ন্যায় দেশের স্বাধীনতাবিরোধী ও মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তিদের রুখে দিতে সর্বদাই স্বচেষ্ট আছে ও থাকবে।এই শোকের আগস্ট হোক শক্তি, তাতেই বাঙ্গালী পাবে দায়ভার থেকে মুক্তি। মুজিব আমার চেতনায়, মুজিব আমার বিশ্বাসে, মুজিব আমার আদর্শে এ স্লোগান হোক প্রতিটি মুজিব সৈনিকদের হৃদয়ে। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

সংবাদ শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

BengalTimesNews.com