বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশী শ্রমিকের করুণ পরিণতি

78752_Bangladeshiডেস্ক : সিঙ্গাপুরে কর্মরত বাংলাদেশী প্রায় ২০ জন শ্রমিক বসবাস করছেন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে। তাদেরকে যেখানে রাখা হয়েছে তাকে অগ্রহণযোগ্য হিসেবে আখ্যায়িত করেছে সিঙ্গাপুরের অভিবাসন বিষয়ককর্তৃপক্ষ মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার্স সেন্টার (এমডব্লিউসি)। বলা হয়েছে, সম্প্রতি এক ডজনেরও বেশি বাংলাদেশী শ্রমিকের বেতন ভাতা নিয়ে সৃষ্ট সঙ্কটে শ্রমিকরা থাকেন এমন দুটি ডরমেটরি পরিদর্শন করে এমডব্লিউসি। এ দুটি ডরমেটরি গেলাং লোরোং ১৩ ও ১৭ তে। রোববার দিবাগত মধ্যরাতে তা পরিদর্শন করে তারা। এতে দেখা যায়, সেখানে কি ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে। তারা দেখতে পায়, যেখানে বাংলাদেশী শ্রমিকদের রাখা হয়েছে সেখানে গাদাগাদি করে অবস্থান করছে অতিরিক্ত শ্রমিক। বাতাস প্রবেশ বা বের হওয়ার জন্য যে ভেন্টিলেশন তাও নাজুক। চারদিকে শুধু তেলাপোকা। কিলবিল করছে ছারপোকা। অপর্যাপ্ত স্যানিটারি সুবিধা। এক ডজনের মতো শ্রমিক ব্যবহার করেন একটিমাত্র টয়লেট। তার মধ্যেই আবার গোসল সারতে হয়। একটি কক্ষে ৮ জন শ্রমিক থাকা অনুমোদিত। কিন্তু বাস্তবে এ সংখ্যা অনেক বেশি। এসব কথা বলেছে সিঙ্গাপুরের অনলাইন দ্য নিউ স্ট্রেইটস টাইমস। এতে বলা হয়, প্রথমে দ্য সানডে টাইমস বাংলাদেশী প্রায় এক ডজন শ্রমিকের বেতন নিয়ে দুর্দশার কথা তুলে ধরে। ওইসব শ্রমিকের ওয়ার্ক পারমিট বাতিল করা হয়েছে। কারণ, তারা বকেয়া বেতনভাতা দাবি করেছিলেন। তাদেরকে নিয়োগ দিয়েছিল এসজেএইচ ট্রেডিং নামের একটি কোম্পানি। এর ম্যানেজার বাংলাদেশী নাগরিক শাহজাহানের সঙ্গে তাদের দ্বন্দ্ব। তিনি সিঙ্গাপুরে তিনটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। বিদেশী শ্রমিকদের কাজে নিয়োগ করেন। এমডব্লিউসি অনুসন্ধানে দেখতে পেয়েছে, লোরোং ১৩ তে পুরো শ্রমিকদের জন্য খাবার রান্না করছিলেন শাহজাহান। এমডব্লিউসি আরো দেখতে পায় সকালের নাস্তার জন্য শতাধিক প্যাকেট খাবার প্রস্তুত করা হয়েছে। দুপুরের রান্না তখন প্রায় শেষ। এমডব্লিউসি-এর চেয়ারম্যান ইয়েও গুয়াত কাওয়াং বলেন, আমরা যে দুটি ডরমেটরি পরিদর্শন করেছি সেখানকার শ্রমিকরা বলেছেন, খাবারের জন্য প্রতিজন শ্রমিকের কাছ থেকে নিয়োগকারীরা মাসে ১৩০ ডলার কেটে নেন। কিন্তু যে খাবার দেয়া হয় তা মানসম্মত নয়। তিনি বলেন, এমনটা গ্রহণযোগ্য নয়। তবে জবাবে শাহজাহান বলেছেন, শ্রমিকরা তার নামে কলঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করছে। এমডব্লিউসি অনুসন্ধানে যা পেয়েছে তা কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেবে এবং শাহজাহানের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করবে বলে জানিয়েছেন ইয়েও গুয়াত কাওয়াং।

সর্বশেষ সংবাদ