বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

চলতি বছরের হজ প্যাকেজ অনুমোদন

720a-600x272মন্ত্রিসভায় আজ ২০১৮ সালের হজ ও ওমরাহ প্যাকেজ অনুমোদিত হয়েছে। এ বছর মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তাঁর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত সাপ্তাহিক বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয় বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বিকেলে বাংলাদেশ সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফকালে এ কথা বলেন।
এবার বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার ও সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ জন হজব্রত পালন করতে পারবেন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রথম প্যাকেজে ৩ লাখ ৯৭ হাজার ৯২৯ টাকা এবং দ্বিতীয় প্যাকেজে ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩৫৯ টাকা ব্যয় হবে।
বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বাড়ি ভাড়া ছাড়া ব্যয় নির্ধারণ হয়েছে ১ লাখ ৬৮ হাজার ২৭৭ টাকা।
এবার সব হজযাত্রীকে মেসিন রিডএ্যাবল পাসপোর্ট বহন করতে হবে।
একটি হজ এজেন্সি কমপক্ষে ১৫০ জন ও সর্বোচ্চ তিনশ’জন হজযাত্রী প্রেরণ করতে পারবে। একটি বিমানে ৩টি হজ্ব এজেন্সির হজযাত্রী ও ৩ জন মোয়াল্লেম নেয়া যাবে।
বেসরকারি হজযাত্রীদের কোরবানীর টাকা কুপনের মাধ্যমে সৌদি আরবে ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে জমা দিতে হবে।
মন্ত্রীপরিষদ সচিব বলেন, হজব্রত পালনে অনলাইনে প্রথমে প্রাক-নিবন্ধন করতে হবে, যা সেন্ট্রাল এনআইডি ডাটাবেজে সংরক্ষিত থাকবে এবং এরপর হজযাত্রী আইডি পেতে তাদের নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। নিবন্ধন ২ বছর পর্যন্ত বহাল থাকবে। এবার পুলিশ ভেরিফিকেশনের প্রয়োজন হবে না কারণ পাসপোর্ট ইস্যুর সময়েই ওই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়।
প্রবাসী বাংলাদেশীরা এনআইডি’র পরিবর্তে তাদের পাসপোর্ট ব্যবহার করে প্রাক-নিবন্ধন করতে পারবেন।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মৃত্যু অথবা গুরুতর অসুস্থতা ছাড়া প্রাক-নিবন্ধন পরিবর্তন করা যাবে না। তবে পরিবর্তনের এই হার মোট নিবন্ধনের ৪ শতাংশের বেশি হবে না।
এ বছর বিমান ভাড়া বেড়ে যাওয়া সম্পর্কে ধর্মবিষয়ক সচিব আনিসুর রহমান বলেন, জ্বালানির দাম বৃদ্ধি, ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্যমান হ্রাস ও আরো কিছু কারণে বিমান ভাড়া বেড়েছে।

মন্ত্রি পরিষদ সচিব বলেন, বিগত বছরগুলোর মত সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হাজীদেরকে বাড়ি ভাড়া হিসাবে এক শতাংশ অতিরিক্ত অর্থ দিতে হবে।
তিনি বলেন, ধর্মমন্ত্রনালয় সরকারি হাজীদের পক্ষে ব্যাংক গ্যারান্টি হিসাবে সৌদি হজ মন্ত্রণালয়কে ১৫২০ টাকা দিবে। বেসরকারি হজ ব্যবস্থাপনায় একজন হাজীর জন্য সংশ্লিষ্ট হজ এজেন্সি এই টাকা পরিশোধ করবে।
আলম বলেন, মক্কা থেকে দুই কিলোমিটার দুরে অবস্থানকারী হাজীরা পরিবহন সুবিধা পাবেন। তিনি আরো বলেন, ২০১৫ সাল থেকে গত তিন বছরে যারা হজ পালন করেছেন, তারাও এ সময়ে হজ ভিসা পাবেন তবে, এ বছরে হজ পালনের জন্য তাদেরকে অতিরিক্ত ২১০০ রিয়াল পরিশোধ করতে হবে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রতি ৪৫ জন হাজির জন্য একজন করে গাইড যাবে সৌদি আরবে এবং বাংলাদেশ থেকে হজ ফ্লাইট শুরুর দু’মাস আগে ফরম পূরণ করার পর হজ ব্যবস্থাপনা তথ্য সিস্টেমে তাকে তালিকাভুক্ত হতে হবে।
তিনি বলেন, হজ যাত্রীদেরকে তাদের নিজ দায়িত্বে তার ট্রলি ব্যাগ কিনতে হবে। অতীতে সরকার ও হজ এজেন্সিগুলো হাজীদেরকে এই ব্যাগ সরবরাহ করত।

সংবাদ শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

BengalTimesNews.com