বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত সৈনিক আজাদুর রহমান আজাদ

29244348_2062186344066786_575430570037739520_o copyবঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত সৈনিক আজাদুর রহমান আজাদ
—আল-আমিন

আজাদুর রহমান আজাদ বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত আওয়ামী লীগের সৈনিক এবং তরুণ প্রজন্মের চেতনা। নৈতিক গুণ সম্পন্ন বিশ্বাসী দক্ষ শিক্ষিত অভিজাত মনের অধিকারী ব্যক্তিত্ব। রাজনৈতিক কর্মতৎপর, প্রগতিশীল চেতনা ধারণকারী, সৃষ্টিশীল কাজে উৎসাহী, প্রতিক্রিয়াশীল, ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক বাস্তববাদি এবং সামাজিক ন্যায়পরায়ন একজন নেতার উদাহরণ আজাদুর রহমান আজাদ। তার নেতৃত্ব দানের ক্ষমতা, নেতৃত্বে গুন, সচ্চরিত্র এবং রাজনৈতিক জীবনের বিশাল কর্মযজ্ঞই প্রমাণিত তিনি রাজনৈতিক মাঠে একজন কর্মদক্ষ নেতা।
আজাদুর রহমান আজাদের নৈতিক গুন অসাধারণ। অনেক নেতাদের নৈতিক গুন থাকা স্বত্ত্বেও দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে নেতাকর্মীদের জন্য এবং ক্ষমতার আবহে সেই গুন শেষ হয়ে যায়। কিন্তু আজাদুর রহমান আজাদের সেই নৈতিক গুন রয়েছে। রাজনীতির মাঠে তিনি একজন জননন্দিত, জনপ্রিয়, জনপ্রতিনিধি হয়েও কখনো ক্ষমতার অপব্যবহার করেননি। এই সিলেট মহানগরের যে কোন নাগরিক আজাদুর রহমান আজাদের নিকট যেকোন সহযোগীতার জন্য গিয়েছেন তিনি তাদেরকে নাকচ করেননি। তার এই গুণাবলীর জন্য এই মহানগরের প্রতিটি ওয়ার্ড, ইউনিট, গলির বাসিন্দার নিকট আজ আজাদুর রহমান আজাদ একজন মডেল। তিনি তরুণ প্রজন্মকে গুরুত্ব দিয়ে সিলেটে প্রবর্তন করেছেন ফুটসালের মতো জনপ্রিয় খেলা। ব্যাডমিন্টন, ঘুড়ি উৎসব সহ নানা ধরণের উৎসব। তিনি বিশ্বাস করেন তরুণ প্রজন্ম জাতির ভবিষ্যৎ। বাংলাদেশে অত্যন্ত প্রহরী এই তরুণ প্রজন্মকে মাদকাসক্ত, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ থেকে ফিরিয়ে রাখতে পারলে পথ হারাবে না বাংলাদেশ। তাই আজাদুর রহমান আজাদ সারা বছর বিভিন্ন খেলাধুলায় মাতিয়ে রাখেন সিলেট মহানগরকে। আর উজ্জীবিত করেন তরুণ প্রজন্মকে।
আজাদুর রহমান আজাদ দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে কখনো কারও সাথে বিশ্বাস ভঙ্গ করেন নি। সিলেটের কোনো নেতা এমনকি তার রাজনৈতিক চরম বিরোধী শক্তিও বলতে পারবে না তিনি কখনও ওয়াদা ভঙ্গ করেছেন এবং ওয়াদা বরখেলাফ করেছেন। তিনি নগরের এ প্রান্ত থেকে ঐ প্রান্তে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে নগরের উন্নয়ন কর্মকান্ডে ভোর থেকেই ছুটে বেড়ান।
রাজনীতিতে তার দক্ষতা বার বার আওয়ামী পরিবার পেয়েছে। ছাত্র জীবন থেকে সিলেট জেলার ছাত্রলীগের দায়িত্ব পালন করা শুরু থেকে সিলেট জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে এখন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। আজাদুর রহমান আজাদ স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, বিএনপি-জামায়াত বিরোধী আন্দোলন এবং ১/১১ এর চরম দুঃসময়ে তিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক।
স্বৈরাচার, জামায়াত-বিএনপি এবং ১/১১ এর চরম সময়ে আজাদুর রহমান আজাদ জেল জুলুম নির্যাতন সহ্য করে আজকের আজাদুর রহমান আজাদ হয়েছেন। তিনি ২০০৪ সালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে একুশে গ্রেনেড হামলা চলাকালীন সময়ে নিজের জীবনকে বাজি রেখে মানব প্রাচীর তৈরী করে রক্ষা করেছেন শত শত জীবন।
আজাদুর রহমান আজাদ একজন অসাম্প্রদায়িক নেতা। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ খ্রিষ্টান সবার জন্য তার দরজা সব সময় উন্মুক্ত। তিনি সিলেট মহানগর তথা সিটি কর্পোরেশন এবং ওয়ার্ড নয় তিনি সিলেট জেলার প্রতিটি উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন এবং ইউনিটে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে এবং আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশনকে ছড়িয়ে দিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি উন্নত নগর সৃষ্টিতে বিশ্বাসী। তার হৃদয়ে বাংলাদেশ, চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ, আদর্শে বঙ্গবন্ধু। তিনি আওয়ামী লীগের অত্যন্ত প্রহরী।
আমি বিশ্বাস করি একজন তরুণ প্রজন্মকে একটি মাদকমুক্ত নগর, সন্ত্রাসমুক্ত শহর, জঙ্গিবাদ মুক্ত প্রজন্ম এবং বিশ্বের আদর্শ সিটির মতো একটি আদর্শ মডেল সিটি গড়তে আজাদুর রহমান আজাদের প্রয়োজন। আজাদুর রহমান আজাদ ব্যক্তি নয়, প্রতিষ্ঠান। আওয়ামী লীগের বিশ্বস্থ প্রতিষ্ঠান। বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। জননেত্রী শেখ হাসিনার সিপাহশালার হাতিয়ার।

সংবাদ শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

BengalTimesNews.com