শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

ছাতকের চাউলি হাওরে বাঁধ নির্মানে অবহেলা : প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

115319aa02cf86973673230edd7a00a5-575e942450049 copyএম. শামীম আহমেদ :: সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার সিংচাপইড় ইউনিয়নের কৃষকদের মধ্যে বিরাজ করছে চরম হতাশা। তারা চুখে দেখছেন শর্ষেফুল। ইউনিয়নের চাউলি হাওর সহ পাঁচটি হাওর রক্ষায় যথাযথ পদক্ষেপ না নেওয়ায় তারা হতাশাগ্রস্থ হচ্ছেন এবং সরকারের প্রতি সাধারণের ক্ষোভের নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে স্থানীয় সরকারীদল এর উপর। শুধুমাত্র চাউলি হাওর বাঁধ নির্মাণের জন্য সরকার ৫৭ লক্ষ টাকার বরাদ্দ অনুমোদন দিলেও অদৃশ্য কারো ইশারায় তা এখনও বাস্তবায়ন করা হয়নি।
জানা যায়, সরেজমিনে পরিদর্শন না করে ঘরে বসে ভুল ও ত্রুটিপূর্ণ সার্ভে রিপোর্টের মাধ্যমে মাত্র সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন পাউবো কর্তৃপক্ষ। যা বাঁধ নির্মাণ হওয়া তো দুরের কথা নির্মাণের নামে এ টাকা ও অপচয় ছাড়া কোন কাজে আসবেনা। চাউলি হাওরসহ ইউনিয়নের অন্যান্য ছোট বড় হাওর রক্ষায় প্রায় শত কোটি টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন। তাই সরজমিনে পরিদর্শন সাপেক্ষে চাউলি হাওরসহ ইউনিয়নের অন্যান্য ছোট বড় হাওর রক্ষায়, চাঊলি হাওরের জন্য সরকার অনুমোদিত ৫৭ লক্ষ টাকার যথাযত ব্যবহার করত বাঁধ নির্মাণ বা সংস্কার বাস্তবায়নের দাবী নিয়ে গত ১১ ফেব্র“য়ারি গণমাধ্যম কর্মীদের উপস্থিতিতে এলাকার সহস্রাধিক মানুষ গণ স্বাক্ষর সহকারে গণমিছিল করে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক কার্যালয় ঘেরাও করে। এ সময় তাদেরকে যথাযথ দাবি পূরণের আশ্বাস দেওয়া হয়।
বিগত ১৪ ফেব্র“য়ারি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক, জেলা পাউবি নির্বাহী প্রকৌশলী সহ সরজমিনে চাউলি হাওর পরিদর্শনে আসেন এবং চেয়ারম্যান ও স্থানীয় কৃষকদের দাবীর সত্যতা উপলব্ধি করে পাউবি কর্মকর্তাদের আবারো সার্ভে করার নির্দেশ প্রদান করে পূর্ণ বরাদ্দকৃত টাকার প্লান দেওয়ার জন্য বলেন। কিন্তু এরপরও তড়িঘড়ি করে পাউবি কর্মকর্তারা সরজমিনে সার্ভে না করে আবারো ১৯ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকার একটি সংশোধিত প্লান প্রস্তুত করে কাজ শুরুর জন্য স্থানীয় কৃষকদের দ্বারা গঠিত পি.আই.সি দের চাপ দিতে থাকেন। উক্ত বরাদ্ধের টাকায় কাজ হবেনা মর্মে পি.আই.সি ও চেয়ারম্যান সাহেল বিভাগীয় কমিশনার অফিসে জানালে ২৬ ফেব্র“য়ারি অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার ছাতক উপজেলায় পি.আই.সি ও চেয়ারম্যান -কে নিয়ে পাঊবি কর্মকর্তাদেরকে উল্লিখিত বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তারা কোন সদুত্তর দিতে পারেনি। এক পর্যায়ে কমিশনার পি.আই.সি দের কাজ শুরু করতে এবং নিয়ম অনুযায়ী পুরো ৫৭ লক্ষ টাকার কাজ করার নির্দেশ দেন এবং বলেন টাকা আরো লাগলে দেওয়া হবে। কিন্তু এর কোন কাজই বাস্তবায়ন না হওয়ায় সিংচাপইড় ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবউদ্দিন মোহাম্মদ সাহেল এলাকাবাসীর পক্ষে  গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী বরাবরে আবেদন করেন। যার স্মারক নং- সিংচাপইড় ইউপি/২০১৮/২১৪। আবেদনের অনুলিপি পানি সম্পদ মন্ত্রী সহ সরকারের বিভিন্ন দায়িত্বশীল মহলে দেয়া হয়। এছাড়া ও আরো ২ বার পাঊবো নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর তাগিদ পত্র পাঠানো হয় কিন্তু আবেদন নিবেদনের দীর্ঘ দেড় মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় হতাশার সাগরে নিমজ্জিত সিংচাপইড় ইউনিয়নের কৃষকগণ। ক্ষোভে ফুঁসছে সাধারণ জনগণ। তাই অবিলম্বে সিংচাপইড় হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে অনুমোদিত ৫৭ লক্ষ টাকা বরাদ্দ ও দ্রুত বাস্তবায়ন করার আহ্বান জানান। তা না করা গেলে কতিপয় অসাধু দুর্ণীতিবাজদের কারনে ইউনিয়ন এর স্থানীয় কৃষকদের বোরো ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হলে বর্তমান সরকার ও সরকারী দল এর ভাবমূর্তি আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে জানা যায়। তাই এ ব্যাপারে আশু ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন কৃষক সমাজ।

সংবাদ শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ

BengalTimesNews.com